Home » পশ্চিমবঙ্গ » সহ কর্মীর বিরুদ্ধে যৌন হেনস্থার অভিযোগে গনপিটুনি জনতার

সহ কর্মীর বিরুদ্ধে যৌন হেনস্থার অভিযোগে গনপিটুনি জনতার

বীরভূম: কর্মক্ষেত্রে যৌন হয়রানির স্বীকার দুই মহিলা। এবার প্যাথলজিক্যাল ল্যাবের গৃহবধূ ও এক তরুনী কর্মীকে দীর্ঘ দিন ধরে কুপ্রস্তাব ও শ্লীলতাহানির ঘটনায় মালিককে ধরে গনপ্রহার জনতার। ঘটনাটি ঘটেছে বীরভূমের সিউড়ি শহরের দমকল কেন্দ্রের কাছে। ঘটনায় অভিযুক্ত মালিককে গ্রেফতার করেছে সিউড়ি থানার পুলিশ।
স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, সিউড়ী শহরের দমকল কেন্দ্রের কাছে মানস মন্ডল নামে এক ব্যাক্তির একটি প্যাথলজিক্যাল সেন্টার চালান। তাঁর বাড়ি সিউড়ি থানার আড্ডা-কুতুরা গ্রামে। তিনি প্যাথলজিক্যাল সংগঠনের সিউড়ি শহরের সম্পাদক। অভিযোগ, তাঁর দুই কর্মীকে দীর্ঘ দিন ধরে কু প্রস্তাব দিচ্ছিলেন ওই ল্যাব মালিক। এক তরুনী দিন সাতেক আগে কু প্রস্তাবে সারা না দিয়ে বাধ্য হয়ে কাজ ছেড়ে দিয়ে পালিয়ে যান। আর এক গৃহবধূ কর্মী কাজ চালিয়ে গেলেও গত দিন দুয়েক ধরে মালিক শালীনতার মাত্রা ছাড়িয়ে যায়। সুযোগ বুঝে ওই গৃহবধূর শ্লীলতাহানি করে বলে অভিযোগ ওই গৃহবধূর। ওই গৃহবধূ ছেড়ে যাওয়া তাঁর সহ কর্মীর পরিবারের কাছে তাঁর উপর ঘটে যাওয়া ঘটনার কথা জানায় শনিবার। এর পর রবিবার দুই জনের পরিবার মিলে মানস মন্ডলের কাছে জবাব দিহি করতে যান। ইতিমধ্যেই ঘটনার কথা জানাজানি হতেই জনতার রোষ পড়ে সেই ল্যাবের মালিক মানস মণ্ডলের ওপর। শুরু হয় উত্তম মধ্যম প্রহার।
ঘটনায় সিউড়ি থানার দুই পরিবার অভিযোগ দায়ের করে ও ল্যাব থেকে অভিযুক্ত মালিককে গ্রেফতার করে নিয়ে যায়। ওই তরুনীর মা বলেন, ল্যাবের মালিক দুই জনকে দীর্ঘ দিন ধরে কুপ্রস্তাব দিচ্ছিল। রাজি হলে বিউটি পার্লার খুলে দেওয়া হবে ও স্কুর্টি কিনে দেওয়ায়ার কথাও বলতো। বাধ্য হয়ে আমার মেয়ে দিন সাতেক আগে কাজ ছেড়ে দেয়। দিন দুয়েক ধরে আর এক জনের শ্লীলতাহানি করছিল। সহ্য করতে না পেরে সে কথা ওই গৃহবধূ আমাদের বাড়িতে গিয়ে বলে। আমারা দুই পরিবার মিলে ল্যাবে গিয়ে ঘটনার প্রতিবাদ করি।

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

মাদ্রাসায় বসে মমতার সমালোচনা করবেন না শিক্ষকদের হুমকি অনুব্রতর

সিউড়ি: তৃণমূল করতে হবে না তাও আচ্ছা। কিন্তু মাদ্রাসায় বসে মমতা বন্দোপাধ্যায়ের সমালোচনা করবেন না। ...