Home » পশ্চিমবঙ্গ » বেসরকারি ঋণদানকারী সংস্থায় দুঃসাহসিক ডাকাতি, লুট নগদসহ ৮ কোটি টাকার সোনা

বেসরকারি ঋণদানকারী সংস্থায় দুঃসাহসিক ডাকাতি, লুট নগদসহ ৮ কোটি টাকার সোনা

আসানসোল: আসানসোলে বেসরকারি ঋণদানকারী সংস্থায় দুঃসাহসিক ডাকাতির ঘটনায় এলাকায় তীব্র চাঞ্চল্য দেখা দিয়েছে। স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, শনিবার সকালে বার্নপুর রোডের কোর্টমোড় এলাকায় থাকা ওই সংস্থায় হানা দেয় দুষ্কৃতীরা। প্রায় ৪০ মিনিট ধরে তারা লুটপাট চালিয়ে প্রায় ৮ কোটি টাকা মূল্যের সোনা ও সাড়ে ৪ লাখ টাকা নগদ লুট করেছে বলে অভিযোগ।

স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ, নাকের ডগায় পুলিশ ফাঁড়ি থাকলেও কেউ এগিয়ে আসেনি। এমনকি ১০০ ডায়ালে ফোন করলেও নাকি কোনও সাড়া পাওয়া যায়নি। ফলে রীতিমত অফিসের ভেতরে ঢুকে কর্মীদের মারধর করে নগদ টাকা ও সোনার গয়না নিয়ে উধাও হয়ে যায় ছ’জনের ওই ডাকাত দল। তবে পুলিশের উদাসীনতার পাশাপাশি এই ঘটনায় ওই সংস্থার কর্মীদেরও গাফিলতি ছিল বলে অভিযোগ উঠেছে।
ওই সংস্থার কর্মীদের মতে, নিয়মমত কাজের দিনগুলিতে সকাল ৯টার আগেই অফিস খোলা হয়েছিল। আর সাড়ে ৯টা থেকে গ্রাহকদের পরিবেষা দেওয়া শুরু হয়। সকাল ৮টা ৫০ মিনিটে এই অফিসের ব্রাঞ্চ ম্যানেজার পাপড়ি বসু নায়েক সহ আরও চারজন কর্মী অফিসে অাসেন। নিয়মমত অফিসের গানম্যান না এলে ব্রাঞ্চ খোলা হয় না। এদিন গানম্যানের আসতে দেরি করায় ব্রাঞ্চ ম্যানেজার পাপড়ি বসু নায়েক অন্যদের ব্রাঞ্চ খুলতে বলেন। লাঠি নিয়ে থাকা আরেকজন নিরাপত্তারক্ষী অভিজিৎ দাসের ভরসাতেই ব্রাঞ্চ খোলা হয়। কিন্তু অফিস খুলতেই অঘটন ঘটে। দ্রুত ছ’জন দুষ্কৃতি আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে ভিতরে ঢুকে পড়ে। তাদের সবার মুখেই বাঁদরটুপি ও হেলমেট ছিল বলে জানা গিয়েছে। প্রথমে ভল্টের চাবি ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে দুষ্কৃতিরা। চাবি না দিতে চাওয়ায় ব্রাঞ্চ ম্যানেজার পাপড়ি বসু নায়েক ও অ্যাকাউন্টেন্ট সুরজিৎ কোনারকে বেধড়ক মারধর করে। অফিসের ভেতরে যখন এই ঘটনা ঘটছে, তখন হঠাৎ বাইরে চলে আসেন গানম্যান তাপস সামন্ত। তাঁর মাথাতেও বন্দুক ঠেকিয়ে ভেতরে ঢোকানো হয়। চলে মারধর। শেষ পর্যন্ত ভল্টের চাবি ছিনিয়েই নেয় দুষ্কৃতিরা। তারপর অফিসের স্টাফদের বাথরুমে ঢুকিয়ে দেওয়া হয়। ভল্টের চাবি খুলে প্রায় সাড়ে চার লাখ টাকা ও সোনার গয়না নিয়ে পালায় দুষ্কৃতিরা। প্রায় ৪০ মিনিট ধরে অপারেশন চালানো হল শহরের একদম প্রাণকেন্দ্রে। পরে ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি পরিদর্শন করেন আসানসোল পুলিশ কমিশনারেটের পুলিশ আধিকারিকরা। পুলিশ কমিশনার লক্ষ্মীনারায়ণ মিনা বলেন, “ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে। খুব দ্রুত সূত্র পাওয়া যাবে।”

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

উলুবেড়িয়া উপনির্বাচনে বিজেপি প্রার্থীর নাম ঘোষণা নিয়ে ধন্দ

কলকাতা: উলুবেড়িয়া লোকসভা কেন্দ্রের উপনির্বাচনে বিজেপি প্রার্থীর নাম চূড়ান্ত ঘোষণা নিয়ে ধন্দ দেখা দিয়েছে৷ দলের ...