Home » পশ্চিমবঙ্গ » সবং উপনির্বাচনের পর উৎসাহিত বাম, বি জে পি, দুই শিবিরই

সবং উপনির্বাচনের পর উৎসাহিত বাম, বি জে পি, দুই শিবিরই

কলকাতা: ২০১১ সালে রাজ্য পাট হারানোর পর থেকেই ভেতরে ভেতরে সংগঠন তছনছ হয়ে যাচ্ছিল সি পি এমের । রবিবার সবং-এ ৪১ হাজার ৯৮৭ টি ভোট পেয়ে সি পি এম উঠে এল দ্বিতীয় স্থানে । তাই, রাজনৈতিক মহলের মতে, সবংয়ের নির্বাচন কিছুটা হলেও উদ্দীপিত করল মুজ্ফর আহমেদ ভবনকে ।

‘ব্র্যান্ড বুদ্ধ’-র জমানায় ২০০৬ সালে সি পি এম পেয়েছিল ৬২ হাজার ০৭৯টি ভোট । সেবার ৬৮ হাজার ৫৯২টি ভোট পেয়ে জিতেছিলেন মানস ভুঁইঞা । ২০১১ সালে বিধানসভা ভোটে কংগ্রেস-তৃণমূলের জোটপ্রার্থী হিসেবে মানস ভুঁইঞা পেয়েছিলেন ৯৮ হাজার ৭৫৫ টি ভোট। ৮৫ হাজার ৫৭১ টি ভোট পেয়েছিলেন নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী সি পি এমের প্রার্থী রামপদ সাহু । ২০১৬ সালের বিধানসভা নির্বাচনে কংগ্রেস-সি পি এমের জোটপ্রার্থী মানস ভুঁইঞা পেয়েছিলেন ১ লক্ষ ২৭ হাজার ৯৮৭টিভোট । সেবার নিকটতম তৃণমূল প্রার্থী পেয়েছিলেন ৭৭ হাজার ৮২০টি ভোট । মমতা বন্দোপাধ্যায়ের প্রবল ঝড়েও নিজের দুর্গ অক্ষত রেখেছিলেন মানস ভুঁইঞা । মাস কয়েক আগে কাঁথি দক্ষিণ উপনির্বাচনে জামানত জব্দ হয়েছিল সি পি এমের উত্তম প্রধানের । তিনি পেয়েছিলেন ১৭ হাজার ৪২৩টি ভোট । সেখানে ৫২ হাজার ৮৪৩ ভোট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে উঠে এসেছিল বি জে পি । তখন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলেছিলেন, বামেদের ভোটই পড়েছে রামে । এই পরিস্থিতিতে সবংয়ে আবার আজ নিজেদের অস্তিত্ব জানান দিল সি পি এম ।
যদিও ২০১৬ সালের চেয়ে এবার সবংয়ের রাজনৈতিক চরিত্রটা সম্পূর্ণ আলাদা ৷ সবং বরাবর মানস ভুঁইয়ার গড় হিসেবে পরিচিত ৷ এদিন ভোটের ফল বেরনোর পর দেখা গেল সে গড় অক্ষতই রয়েছে মানস ভুঁইয়ার ৷ তিনি তৃণমূলে গেলেও তাঁকে ছেড়ে যাননি তার কর্মী সমর্থকরা ৷ বরং এর জেরে কংগ্রেসের ভোট কমেছে উল্লেখযোগ্য ভাবে ৷ আর তাই কংগ্রেস নেমে গিয়েছে চতুর্থ স্থানে ৷ কংগ্রেস প্রার্থী পেয়েছেন মাত্র ১৮ হাজার ৬০টি ভোট ৷ এই পরিস্থিতিতে ভোট বেড়েছে বি জে পির ৷ আর তা এক লাফে ১৫ শতাংশ ৷ দেড় বছরের মধ্যে বি জে পি-র ভোট বেড়েছে প্রায় ৩২ হাজার ৷ এবার সবংয়ে বি জে পি-র প্রার্থী ভোট পেলেন ৩৭ হাজার ৪৭৬ টি ভোট ৷ ফলে এই পরিসংখ্যান বি জে পি-র পক্ষে খুবই উৎসাহ ব্যাঞ্জক ৷

যদিও রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, ভোটের এই পরিসংখ্যান থেকে স্পষ্ট, বি জে পি-র উত্থান সত্ত্বেও সবংয়ে নিজেদের কোর ভোটব্যাঙ্ক ধরে রাখতে পেরেছে বাম শিবির । রাজ্যে সি পি এমের সংগঠনের সেই জোর আর নেই, যা ২০১১ সালে ছিল । ভাঙা সংগঠন নিয়েও ৬ বছর পরও নিজেদের অস্তিত্ব টিকিয়ে রেখেছে বামেরা । ২০০৬ সালের চেয়ে ২০ হাজার ভোট কমেছে। ক্ষমতা চলে যাওয়ার পর যা অস্বাভাবিক নয় । সবমিলিয়ে সবং নির্বাচনের ফল নিশ্চিতভাবেই উত্সাহ যোগাচ্ছে আলিমুদ্দিন স্ট্রিটকে ।

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

উলুবেড়িয়া উপনির্বাচনে বিজেপি প্রার্থীর নাম ঘোষণা নিয়ে ধন্দ

কলকাতা: উলুবেড়িয়া লোকসভা কেন্দ্রের উপনির্বাচনে বিজেপি প্রার্থীর নাম চূড়ান্ত ঘোষণা নিয়ে ধন্দ দেখা দিয়েছে৷ দলের ...