Home » দেশ » বিশ্বের সেরা বিজ্ঞানীদের উপহার দিয়েছে বাংলা, সত্যেন্দ্রনাথ বসুকে শ্রদ্ধা জানাতে গিয়ে বললেন প্রধানমন্ত্রী

বিশ্বের সেরা বিজ্ঞানীদের উপহার দিয়েছে বাংলা, সত্যেন্দ্রনাথ বসুকে শ্রদ্ধা জানাতে গিয়ে বললেন প্রধানমন্ত্রী

কলকাতা: “বিশ্বের সেরা বিজ্ঞানীদের উপহার দিয়েছে বাংলা। এটা রীতিমত গর্বের ব্যাপার।” সোমবার প্রয়াত বিজ্ঞানী সত্যেন্দ্রনাথ বসুর ১২৫ বছর উদযাপনের প্রস্তুতি উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী দিল্লি থেকে কলকাতায় এক ভিডিও সম্মেলনে এই মন্তব্য করেন। তিনি বলেন, বিভিন্ন ক্ষেত্রে কৃতিদের উপহার দিয়েছে বাংলা।
১৮৯৪ সালের ১লা জানুয়ারি উত্তর কলকাতার গোয়াবাগান অঞ্চলে ঈশ্বর মিত্র লেনের পৈত্রিক বাড়িতে তাঁর জন্ম। এই উপলক্ষে বিজ্ঞান-তপস্বী সত্যেন বসুর স্মরণ অনুষ্ঠানটি এ দিন কলকাতায় হয় তাঁর নামাঙ্কিত ‘সেন্টার ফর বেসিক সায়েন্সে‘। এর অঙ্গ হিসাবে রোড শো, বিশেষ মোড়ক, বক্তৃতামালা, প্রদর্শনী, তথ্যচিত্র প্রভৃতির আয়োজন করা হয়। প্রধানমন্ত্রী বলেন, “২০২২ সালে নয়া ভারত তৈরির যে লক্ষ্যমাত্রা ধার্য হয়েছে, তার প্রস্তুতির নিরিখে এ বছর খুব গুরুত্বপূর্ণ। দেশ গঠনে বিজ্ঞানীদের বিশেষ ভূমিকা আছে। দক্ষ ভারত এবং স্বনির্ভর ভারত তৈরির জন্য আমরা বিশ্ব মানের ২০টি প্রতিষ্ঠান তৈরির চেষ্টা করছি।”

আলোর মৌলিক কণা ফোটন, হিলিয়াম নিউক্লিয়াস বা আলফা পার্টিক্যল ইত্যাদি ‘বোস-আইনস্টাইন সংখ্যায়ন তত্ত্ব’ (Bose-Einstein Statistics) মেনে চলে। এ ধরণের কণাগুলো সত্যেন বসুর নামানুসারে ‘বোসন’ (Boson) নামে পরিচিত। কী অসাধারণ মৌলিক আবিষ্কারের বিনিময়ে এরকম স্বীকৃতি পাওয়া যায় তা বলাই বাহুল্য। আইনস্টাইন নিজেই সত্যেন বসুর কাজ সম্পর্কে মন্তব্য করেছিলেন “এক কথায় অসাধারণ”।
সত্যেন বসুর সাফল্যের সবিস্তার আলোচনা করতে গিয়ে এ দিন প্রধানমন্ত্রী বলেন, “সময় এবং তত্কালীন সমাজ থেকে তিনি ছিলেন অনেকটা এগিয়ে থাকা মানুষ। তিনি ছিলেন স্বশিক্ষিত পন্ডিত। বহু বাধা ডিঙিয়ে, নানা খামতি থাকা সত্বেও নিজেকে এবং নিজের সাফল্যকে প্রমাণ করেছিলেন তিনি ।”

এ দিনের আলোচনায় বিশিষ্ট কিছু বিজ্ঞানি তাঁর অসাধারণ মেধা ও কীর্তির উল্লেখ করেন। বিজ্ঞান বিশ্বের এই অসাধারণ পন্ডিত সত্যেন্দ্রনাথ বসু খুব সাধারণ বাঙালি পরিবারের সন্তান ছিলেন। এ দিন বোস আর্কাইভ এবং সংগ্রহশালার উদ্বোধন করা হয় ‘সেন্টার ফর বেসিক সায়েন্সে‘। আলোচনা-প্রদর্শনী তুলে ধরেছে অনন্য সত্যেন্দ্রনাথকে। বাবা সুরেন্দ্রনাথ বসু, মা আমোদিনী দেবী। সুরেন্দ্রনাথ বসু ছিলেন রেলওয়ের হিসাব রক্ষক। নর্মাল স্কুলে প্রাথমিক ও হিন্দু স্কুলে মাধ্যমিক শিক্ষা লাভ করেন সত্যেন্দ্রনাথ। ১৯০৯ সালে প্রবেশিকা পরীক্ষায় ৫ম স্থান অধিকার করেন তিনি। তারপর প্রেসিডেন্সি কলেজ থেকে ১৯১১ সালে আই-এস-সি পরীক্ষায় প্রথম স্থান অধিকার করেন। সত্যেন বসু ১৯১৩ সালে গণিতে অনার্স সহ বি-এস-সি পরীক্ষায় প্রথম শ্রেণীতে প্রথম স্থান ও ১৯১৫ সালে এমএসসি সমাপ্ত করেন। উভয় পরীক্ষায়ই তিনি প্রথম স্থান অধিকার করেন। দ্বিতীয় স্থানটি ছিল মেঘনাদ সাহার। সে যুগেও চাকরি পাওয়া সহজ ছিল না। দু’জনকেই একটি বছর বেকার থাকতে হয়। এ দুঃসময়ে আশীর্বাদ হিসেবে উদয় হন কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের তত্কালীন উপাচার্য স্যার আশুতোষ মুখার্জী। তিনি রত্ন চিনতে ভুল করেননি। ১৯১৬ সালে বসু ও সাহা উভয়েই কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে মাসিক ১২৫ টাকা বেতনে চাকরি শুরু করেন। বিংশ শতাব্দীর কুড়ির দশক পদার্থবিজ্ঞানের জন্য এক দারুণ সময়। প্ল্যাঙ্ক, বোর, আইনস্টাইন তাঁদের যুগান্তকারী সব আবিষ্কারের মাধ্যমে বিশ্বজুড়ে সাড়া জাগিয়েছেন।
সত্যেন বসুর ১২৫ বছর উদযাপন সাড়া বছর ধরে চলবে বলে জানান প্রধানমন্ত্রী।

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

প্রবল হই-হট্টগোলের মধ্যেই তিন তালাক বিরোধী বিল পেশ রাজ্যসভায়

নয়াদিল্লি: প্রবল হই-হট্টগোলের মধ্যেই বুধবার রাজ্যসভায় পেশ করা হল তাৎক্ষণিক তিন তালাক বিরোধী বিল। এদিন ...