‘ভবিষ্যতের ভূত’  নিয়ে সুপ্রিম কোর্টের রায়ে উচ্ছ্বসিত টলিপাড়া, চাপে রাজ্য সরকার

‘ভবিষ্যতের ভূত’ নিয়ে টালবাহানা চলছিল অনেকদিন ধরেই। উল্লেখ্য গত ১৫ ফেব্রুয়ারি মুক্তি পাওয়ার পরদিনই আচমকাই হল থেকে উধাও হয়ে যায় ‘ভবিষ্যতের ভূত’। এরপর সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিলেন প্রযোজকরা। আজ সুপ্রিম কোর্ট যে রায় দিয়েছে, তাতে কার্যত জয় হয়েছে ‘ভবিষ্যতের ভূত’-এর।

পাশাপাশি আদালতের তরফে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে, রাজ্য যেন নির্মাতাদের ২০ লক্ষ টাকা জরিমানা দেয়। এই টাকা সিনেমার প্রযোজক থেকে শুরু করে কলাকুশলীদের মধ্যে ভাগ করে দেওয়া হবে বলেও জানান হয়েছে। সর্বোচ্চ আদালতের এই রায়ের পর বাংলা ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে খুশির হাওয়া বইছে।

এই প্রসঙ্গে ডিভিশন বেঞ্চের পক্ষ থেকে জানানো হয়, মানুষের বাক্‌স্বাধীনতা ক্ষুণ্ণ করা যায় না। প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে যেভাবেই হোক এই সিনেমার অবাধ প্রদর্শনীতে বাঁধা দেওয়া হয়েছে যা মানুষের বাক্‌স্বাধীনতাকে বাঁধা দেওয়ার সামিল।

এই সিনেমায় এমন কিছু দৃশ্য আছে যেটা রাজনৈতিক কিছু সমস্যার সৃষ্টি করতে পারে, এই অভিযোগে রাজ্যের হলগুলি থেকে এই ছবির প্রদর্শনী বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল। তবে সুপ্রিম কোর্টের রায়ে টলি পাড়ার সকলেই খুশি।

এই প্রসঙ্গে প্রযোজক কল্যাণময় চট্টোপাধ্যায়ের জানান, আমরা কোনও ক্ষতিপূরণ চাইনি। আদালতই নিজে থেকে এই নির্দেশ দিয়েছে। তবে ২০ লক্ষ টাকাটা খুব বড় ব্যাপার নয়। সিনেমাটি যে পুনরায় হলে চলছে সেটা আমার কাছে অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। শিল্পীর বাক‌্‌স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ করার বিরুদ্ধে বলেছে আদালত। এতে সকলে বুঝতে পারবে ভবিষ্যতে এমন কোনও ঘটনা ঘটলে আর্থিক জরিমানাও হতে পারে।’

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *